পশ্চিমবঙ্গ সরকারের গৃহীত বিভিন্ন প্রকল্প

পশ্চিমবঙ্গ সরকারের গৃহীত বিভিন্ন প্রকল্প গুলির নাম , শুরু হবার তারিখ , উদ্দেশ্য ও কিছু তথ্যাবলী নিচে ছকের আকারে দেওয়া হলো।

প্রকল্পের নাম সময় উদ্দেশ্য তথ্যাবলী
খাদ্যসাথি ২০১৬, ২৭ জানুয়ারি রাজ্যের মানুষকে ভর্তুকিতে খাদ্যশস্য প্রদান রাজ্যের ৭.৫ কোটি মানুষকে ২ টাকা কেজি দরে চাল ও গম দেওয়ার উদ্দেশ্যে এই প্রকল্প চালু করা হয়েছে ।
উৎকর্ষ বাংলা ২০১৬, ১৬ ফেব্রুয়ারি কারিগরি ও বৃত্তিমূলক শিক্ষার উন্নয়ন কারিগরি ও বৃত্তিমূলক প্রশিক্ষণের শেষে কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা করার লক্ষ্যে এই প্রকল্প চালু করা হয়েছে ।
কন্যাশ্রী ২০১৩, ১ অক্টোবর নারীশিক্ষার প্রসার , বাল্যবিবাহ ও নারীপাচার রোধে আর্থিক অনুদান প্রকল্প স্কুলছুটের সংখ্যা কমান্যে , বাল্যবিবাহ , নারীপাচার প্রভৃতি দুর করবার উদ্দেশ্যে অষ্টম থেকে দ্বাদশ শ্রেণির মধ্যে পাঠরতা এবং ১৩ থেকে ১৮ বছর বয়সসীমার মধ্যে কন্যারা এই প্রকল্পে রাজ্য সরকারের কাছ থেকে বার্ষিক ৭৫০ টাকা হারে নিয়মিত ভাতা পাবে । এছাড়া তাঁদের বয়স যখন ১৮ বছর হবে এবং তখনও পর্যন্ত যদি তাঁরা অবিবাহিত থাকেন , যাদের পরিবারের বার্ষিক আয় ১ লক্ষ ২০ হাজার টাকার নীচে তাঁরা আরও এককালীন ২৫ হাজার টাকা আর্থিক অনুদান পাবেন ।
যুবশ্রী ২০১৩, ৩ অক্টোবর বেকার যুবক - যুবতীদের উদ্যোগ ভাতা দীঘদিন এমপ্লয়মেন্ট এক্সচেঞ্জে নাম নথিভুক্ত বেকার যুবক - যুবতীদের সরকারের পক্ষ থেকে যুবশ্রী প্রকল্পের অধীনে মাসিক ১৫০০ টাকা ভাতা দেওয়া হচ্ছে । অষ্টম শ্রেণি উত্তীর্ণ ও ১৮-৪৫ বছরের মধ্যে বয়স হতে হবে । একটি পরিবার থেকে একজনই এই ভাতা পাবেন । এই প্রকল্পের স্লোগান - 'হতাশা ভাঙো , জীবন গড়ো '।
মিশন নির্মল বাংলা ২০১৪, ২ অক্টোবর রাজ্যজুড়ে সার্বিক স্বাস্থ্যবিধানের লক্ষ্যে সার্বিক স্বাস্থ্যবিধানের লক্ষ্যে পারিবারিক শৌচাগার নির্মাণে নদিয়া জেলা সারা দেশের মধ্যে প্রথম স্থান অধিকার করেছে । এরপরই হুগলি ও বর্ধমান জেলার স্থান । নদিয়ার এই সাফল্য আন্তর্জাতিক স্তরেও স্বীকৃতি পেয়েছে । ৩০ এপ্রিল এই দিনটি রাজ্যে ‘ নির্মল বাংলা দিবস ' হিসেবে উদযাপিত হচ্ছে ।
ন্যায্য মূল্যের ওষুধের দোকান -- গরিব মানুষদের তথা অসুস্থ অবস্থায় জনগণের জন্য কম দামে ওষুধ দেওয়া সাধারণ মানুষের জন্য বিভিন্ন সংস্থার সঙ্গে যৌথ উদ্যোগে সরকারের পক্ষ থেকে বিভিন্ন হাসপাতালে ন্যায্য মূল্যের ওষুধের দোকান স্থাপন করা হয়েছে । এই দোকানগুলিতে বিভিন্ন ওষুধের ওপর ছাড়ের পরিমাণ ৪২ % থেকে ৭৬ % পর্যন্ত আছে । এছাড়া পিপিপি মডেলে রাজ্যের বিভিন্ন হাসপাতালে সিটিস্ক্যান , ডায়ালিসিস , ডিজিটাল এক্স - রে , যাত্রী প্রতীক্ষালয় , উন্নত পরিবেশের সুবিধা থাকছে ।
মাইক্রো বিজনেস ক্রেডিট কার্ড ২০১৫, ১১ ফেব্রুয়ারি ক্ষুদ্র উদ্যোগপতিদের জন্য ক্রেডিট কার্ড ক্ষুদ্র উদ্যোগপতিদের জন্য পশ্চিমবঙ্গ সারা ভারতে প্রথম মাইক্রো বিজনেস ক্রেডিট কার্ড প্রকল্প চালু করেছে । SBI- এর সঙ্গে যৌথ উদ্যোগে গড়ে ওঠা এই প্রকল্পে ক্ষুদ্র উদ্যোগপতিরা ৫ লক্ষ টাকা পর্যন্ত ঋণ সিকিউরিটি ছাড়াই পেতে পারেন ।
প্রানধারা ২০১৫, আগস্ট সহজভাবে পানীয় জলের বিতরণ করা ত্রাণের কাজসহ বিভিন্ন সংকটজনক পরিস্থিতিতে পানীয় জলের সুবিধাজনক বিতরণের উদ্দেশ্যে রাজ্য সরকার নিয়ে এসেছে বোতলে ভর্তি পানীয় জল ' প্রাণধারা ' ।
গীতাঞ্জলি ও আমার ঠিকানা ২০১১ দরিদ্র মানুষদের বাসস্থানের উদ্দেশ্যে রাজ্যের যেসব দরিদ্র মানুষের মাসিক আয় ৬ হাজার টাকা বা তার কম তাদের বাসস্থানের প্রয়োজনে ৭০,০০০ টাকা প্রদানের মাধ্যমে রাজ্য সরকারের নতুন প্রকল্প ' গীতাঞ্জলি ' ও ' আমার ঠিকানা ' । এই প্রকল্প দু'টির মাধ্যমে একদিকে যেমন অর্থনৈতিকভাবে অনগ্রসর মানুষদের জন্য উপযুক্ত বাসস্থানের ব্যবস্থা করা সম্ভব হচ্ছে- তেমনই নির্মাণকর্মীদের জন্যও কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা হচ্ছে ।
বিশ্ব বাংলা শোরুম ২০১৪, ২৬ ফেব্রুয়ারি বাংলার হস্তশিল্পের প্রসার বাংলার ঐতিহ্যমণ্ডিত হস্তশিল্প যাতে সারা বিশ্বের কাছে পৌঁছে যায় এই লক্ষ্যে কলকাতা বিমানবন্দর , দক্ষিণাপন , রাজারহাট ও দিল্লিতে বিশ্ব বাংলার শোরুম চালু হয়েছে ।
পথসাথি -- যাত্রীদের সুবিধা প্রদান রাজ্যের গুরুত্বপূর্ণ সড়কগুলিতে সফররত মানুষ , বিশেষত মহিলাদের বিশেষ অসুবিধার কথা চিন্তা করে প্রতি ৫০ কিমি অন্তর ' পথসাথি ' নামে মোটেল নির্মাণ করা হচ্ছে । মোটেলগুলিতে শৌচাগার , যাত্রী প্রতীক্ষালয় , নৈশাবাস ও রেস্তরাঁর ব্যবস্থা থাকবে ।
নিজ গৃহ নিজ ভূমি ২০১১, ১৮ অক্টোবর দরিদ্র মানুষের নিজের বাড়ির স্বপ্নকে সফল করতে গ্রামাঞ্চলের দরিদ্র গৃহহীন খেতমজুর , কারিগর ও মৎস্যজীবী পরিবারগুলিকে পরিবার পিছু ৫ শতক পর্যন্ত জমির মালিকানা ও এই জমিতে তাঁরা বিভিন্ন সরকারি প্রকল্পের টাকায় ও পরিবারের সদস্যদের শ্রমে বাড়ি তৈরি করতে পারবেন । এর ফলে তাঁরা মজুরি বাবদ কিছু উপার্জনও করতে পারবেন ।
মাটির কথা -- বিভিন্ন কৃষিক্ষেত্র সহায়তা প্রদান কৃষি , কৃষি বিপণন , পশুপালন , মৎস্য ও উদ্যানপালন এই ৫ টি বিষয় সম্পর্কিত যাবতীয় তথ্য এই পোর্টাল থেকে পাওয়া যায় ।
কিষান ক্রেডিট কার্ড -- এই কার্ডের মাধ্যমে ব্যাঙ্ক থেকে কৃষিঋণ প্রদান কৃষকরা এই কার্ডের মাধ্যমে আঞ্চলিক গ্রামীণ ব্যাঙ্ক , সমবায় ব্যাঙ্ক , রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাঙ্ক থেকে ঋণ পাবেন । ৬৫ লক্ষেরও বেশি কৃষক এই কার্ডের মাধ্যমে লাভবান হয়েছেন ।
সুফল বাংলা প্রকল্প ২০১৪, ২৯ সেপ্টেম্বর দারিদ্র্যসীমার নীচে বসবাসকারী জনগণকে ন্যায্য দামে পুষ্টিকর খাদ্যের জোগান দরিদ্র জনগণকে কম দামে পুষ্টিকর খাদ্যের জোগান ও একই সঙ্গে কৃষি অর্থনীতির উন্নতি ঘটাতে শুরু হয়েছে সুফল বাংলা প্রকল্প । এই প্রকল্পে চলমান গাড়িতে করে দরজায় দরজায় ফল ও সবজি বিক্রয়ের ব্যবস্থা করা হয়েছে । প্রকল্পের ফলে নতুন নতুন কর্মসংস্থানেরও সৃষ্টি হয়েছে ।
আমার ফসল আমার গোলা , আমার ফসল আমার গাড়ি ২০১৪, জানুয়ারি ক্ষতির হাত থেকে কৃষককে বাঁচাতে রাজ্যের প্রান্তিক চাষিদের নিজস্ব গোলা ও নিজস্ব গাড়ি না থাকার জন্য এ রাজ্যে অনেক ফসলের অপচয় হত । ক্ষতির হাত থেকে কৃষকদের বাঁচাতে কৃষি বিপণন দপ্তর , নিজস্ব গোলা তৈরির জন্য ৫ থেকে ২৫ হাজার টাকা ও নিজস্ব গাড়ি কেনার জন্য সরকারের পক্ষ থেকে কৃষকদের ১ লক্ষ টাকা পর্যন্ত আর্থিক সাহায্য প্রদান করা হয় ।
জল ধরো , জল ভরো -- জলসম্পদকে বাঁচানো ও বৃষ্টির জলের অপচয় বন্ধ করা বিভিন্ন জলাশয় , খাল , বিল ও প্রকৃতির জলধারণ ক্ষমতা বাড়ানোর উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়েছে । এর ফলে সুখা মরসুমে জলের অভাব মিটবে , মৎস্যচাষ , পশুপালন ইত্যাদি ক্ষেত্রেও সুবিধা হবে ।
সামাজিক মুক্তি কার্ড -- অসংগঠিত ক্ষেত্রের শ্রমিকদের জন্য এই প্রকল্প অসংগঠিত ক্ষেত্রের শ্রমিকদের একটি কার্ড প্রদান করা হবে , যার মাধ্যমে কার্ডধারীরা স্বাস্থ্য , শিক্ষা , পেনশন ইত্যাদি ক্ষেত্রের যাবতীয় সুযোগ - সুবিধার ভাতা অতি দ্রুত পাবেন । এছাড়া কোনো কারণে কর্মহীন হলে বা বয়সজনিত কারণে বা অসুস্থ হলে সব ধরনের সামাজিক সুরক্ষা পাবেন ।
শিশুসাথি ২০১৩, ২১ আগস্ট শিশুদের হার্টের বিনামুল্যে অস্ত্রোপচার এই প্রকল্পে দরিদ্র পরিবারের ১২ বছরের কমবয়সি শিশুদের হার্টে অস্ত্রোপচার করার দরকার হলে তা সম্পূর্ণ বিনামূল্যে করা হবে । এজন্য সরকারি হাসপাতাল ছাড়াও সরকার ৩ টি বেসরকারি হাসপাতালে প্রতি বছর ৩০০০ শিশুর বিনামূল্যে হার্টের অস্ত্রোপচার করা হবে । সঙ্গে স্কুলগুলিতে নিয়মিত শিশুদের স্বাস্থ্যপরীক্ষার উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে ।
সবুজ সাথি ২০১৫, সেপ্টেম্বর ছাত্রছাত্রীদের স্কুলে যাতায়াতের জন্য সাইকেল প্রদান এই প্রকল্পের অধীনে এই রাজ্যের দশম , একাদশ ও দ্বাদশ শ্রেণিতে পাঠরত ছাত্র ছাত্রীদের স্কুলে যাতায়াতের জন্য সাইকেল প্রদান করা হয় । এই প্রকল্পে ৭০ লক্ষ ছাত্রছাত্রীকে সাইকেল দেওয়া হচ্ছে ।
মধুরস্নেহ ২০১৩, আগস্ট বিশেষ শিশুর জন্য হিউম্যান মিল্ক ব্যাঙ্ক পূর্ব ভারতের প্রথম এবং দেশের সবচেয়ে আধুনিক মানব দুগ্ধ ব্যাঙ্ক চালু হয়েছে এসএসকেএম হাসপাতালে । এখানে পাস্তুরাইজেশন , অত্যন্ত আধুনিক দুগ্ধ সংগ্রহ , নির্বাচন ও প্রক্রিয়াকরণ পরীক্ষা ও ভাণ্ডারীকরণের সুবিধা রয়েছে । নির্দিষ্ট সময়ের আগে জন্মানো শিশু কিংবা যাদের জন্মের সময় ওজন খুব কম হয় , বা যাদের মায়েরা প্রত্যক্ষভাবে দুগ্ধ পান করাতে পারেন না তাঁরা এই প্রকল্পের সুবিধা পাবেন ।
শিক্ষাশ্রী ২০১৪ রাজ্যের তপশিলি জাতি , এবং উপজাতি ছাত্রছাত্রীদের উন্নয়ন প্রকল্প রাজ্যের তপশিলি জাতি এবং উপজাতি যেসব ছাত্র - ছাত্রী পঞ্চম থেকে অষ্টম শ্রেণিতে পড়ে এবং সরকারি হোস্টেলে থাকে না , তাদের শিক্ষায় উৎসাহ দেওয়ার জন্য এবং তাদের মধ্যে স্কুলছুটের সংখ্যা কমানোর জন্য রাজ্য সরকার ' শিক্ষাশ্রী ' বৃত্তি চালু করেছে ।
কর্মতীর্থ ২০১৪, ১ আগস্ট নতুন কর্মসংস্থান সৃষ্টি মূলত স্বনির্ভর গোষ্ঠীর সদস্যদের উৎপাদিত দ্রব্যাদি , গ্রামীণ জনগণের কাছে বিক্রয়ের জন্য এই প্রকল্প। পঞ্চায়েতের মাধ্যমে এই সমস্ত সামগ্রী বিক্রির জন্য ৫০০ টি মার্কেটিং হাব তৈরির পরিকল্পনা করা হচ্ছে ।
মুক্তিধারা ২০১৩, ৭ মার্চ স্বনির্ভর গোষ্ঠীর সদস্যদের সম্মানজনকভাবে জীবিকা অর্জনের জন্য এই প্রকল্প স্বনির্ভর গোষ্ঠীর সদস্যদের সম্মানজনকভাবে জীবিকা অর্জনের জন্য পুরুলিয়া জেলায় সূচনা হয় ' মুক্তিধারা ' প্রকল্পের । নাবার্ডের সহযোগিতায় এই প্রকল্পে স্বনির্ভর গোষ্ঠীর সদস্যদের প্রশিক্ষণ দেওয়া হয় । প্রশিক্ষণের পর তাঁদের ব্যাঙ্ক থেকে ঋণদানের ব্যবস্থা করা হয় ।
শিল্পসাথি -- শিল্প স্থাপনের জন্য বিনিয়োগকারীদের সমস্যা সমাধান শিল্প স্থাপনের জন্য প্রয়োজনীয় লাইসেন্স , রেজিস্ট্রেশন ইত্যাদি পেতে সরকারিভাবে বিনিয়োগকারীদের সমস্ত সুযোগ - সুবিধার লক্ষ্যে সিঙ্গল উইন্ডো প্রকল্প ' শিল্পসাথি ' বিনিয়োগে ইচ্ছুক শিল্পপতিরা একটি সাধারণ আবেদনপত্রে আবেদন করবেন । সংশ্লিষ্ট আধিকারিকরা নির্দিষ্ট দিনে ইচ্ছুক বিনিয়োগকারীদের প্রয়োজনীয় লাইসেন্স , রেজিস্ট্রেশন প্রভৃতি দেওয়া হবে । এই প্রকল্পের সঙ্গে যোগ হবে G2B এবং e-Biz নামে পোর্টালটি ।
গতিধারা ২০১৪, আগস্ট পরিবহণ শিল্পের উন্নতিতে এই প্রকল্প বেকার যুবক - যুবতীদের পরিবহণ শিল্পে উৎসাহ দিতে এই প্রকল্প । এই প্রকল্পে আঞ্চলিক পরিবহণ আধিকারিক বা ব্যাঙ্কের মাধ্যমে গাড়ি কেনার জন্য সহজ শর্তে ঋণ দেওয়া হবে ।
সামাজিক সুরক্ষা যোজনা -২০১৭ ২০১৭ যাবতীয় সামাজিক সুরক্ষা প্রদান এই প্রকল্পে মাত্র ২৫ টাকা করে জমা করে পেনশন , ফ্যামিলি পেনশন , মৃত্যুজনিত কারণে আর্থিক সহায়তা , ক্যাশলেস মেডিক্যাল বেনিফিট , বিয়ে ও মাতৃত্বের জন্য সাহায্য , সন্তানের শিক্ষার জন্য অনুদান ইত্যাদি পাওয়া যাবে । প্রায় ১.৫ কোটি অসংগঠিত এককালীন ২৫ টাকার বিনিময়ে পারিবারিক পেনশনের সুবিধা পাচ্ছেন ।
সংখ্যালঘু উন্নয়ন প্রকল্প -- সংখ্যালঘু ছাত্র - ছাত্রী ও সম্প্রদায়ের সামাজিক উন্নয়ন সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের ছাত্র - ছাত্রীদের শিক্ষার প্রসার ও উচ্চশিক্ষা লাভের জন্য স্কলারশিপ প্রদান । MSDP প্রকল্পে শিক্ষা , স্বাস্থ্য , আবাসন , পানীয় জল ইত্যাদি ক্ষেত্রে সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের মানুষের জন্য দীর্ঘকালীন সম্পদ বৃদ্ধিতে বরাদ্দ প্রায় ১৫ % সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের মানুষকে OBC তালিকায় আনা এবং সরকারের বিভিন্ন জেলায় একাধিক ' মাইনরিটি হাট ' তৈরির পরিকল্পনা রয়েছে ।
প্রত্যাশা -- পুলিশ কর্মীদের নিজের বাড়ির স্বপ্ন পুরণ পশ্চিমবঙ্গের পুলিশবাহিনীর কর্মরত পুলিশ কর্মীদের নিজের বাড়ির স্বপ্নকে বাস্তবায়িত করতে একটি আবাসন প্রকল্প ।
সবার ঘরে আলো ২০১২, জুলাই রাজ্যের ১১ টি জেলায় বিদ্যুতায়ন দক্ষিণ দিনাজপুর , মালদহ , মুর্শিদাবাদ , বীরভূম , দক্ষিণ ২৪ পরগনা , উত্তর দিনাজপুর , পুরুলিয়া , জলপাইগুড়ি , পূর্ব মেদিনীপুর , পশ্চিম মেদিনীপুর , বাঁকুড়ায় বিশেষ অনগ্রসর , অঞ্চল মঞ্জুরি তহবিল পরিকল্পনার মাধ্যমে ১০০ শতাংশ বিদ্যুতায়ন ।
সেচবন্ধু -- রাজ্যের সেচ ব্যবস্থার উন্নতি করণ এটি একটি কৃষক মিত্র প্রকল্প । এর মাধ্যমে রাজ্যের সেচ ব্যবস্থাকে আরো উন্নত করতে কৃষকদের বিদ্যুৎ সংযোগ ব্যবস্থাসহ ৪৬,০০০ নতুন পাম্প সেট প্রদান করা হচ্ছে ।
আকাঙ্খা -- রাজ্যের সরকারি কর্মচারীদের নিজেদের বাড়ির ইচ্ছাপুরণ রাজ্যের সরকারি কর্মচারীরা নিজেদের বসবাসের জন্য বাড়ি বা ফ্ল্যাট নির্মাণের ক্ষেত্রে যে সমস্ত অসুবিধার সম্মুখীন হয়ে থাকেন সেগুলির সমাধানের জন্য ১০০ কোটি টাকা তহবিলসহ এটি একটি নতুন গৃহনির্মাণ প্রকল্প ।
আনন্দধারা ২০১২, ১৭ মে গ্রামীণ দরিদ্র ও প্রান্তিক মানুষের জীবিকা সংস্থান গ্রামীণ দরিদ্র ও প্রান্তিক মানুষদের একটি স্ব - নিয়ন্ত্রিত স্বতন্ত্র্যপূর্ণ প্রতিষ্ঠানের ছত্রছায়ায় সংগঠিত করা এবং সমষ্টিগত ভাবে জীবিকা সংস্থানের সহায়তা করা হবে এই প্রকল্পের মাধ্যমে ।
কর্মশ্রী ২০১৪ অতিরিক্ত কাজের সুযোগ করে দেওয়া এটি শ্রম দপ্তরের অন্য কয়েকটি প্রকল্পের সম্মিলিত রূপ । যে ব্যক্তির কোনো প্রকল্প ২০ দিন কাজ করেছে , সেই ব্যক্তিকে অন্য প্রকল্পে আরও ২০ দিনের কাজ দেওয়া হবে এই প্রকল্পের মাধ্যমে ।
সবলা ২০১১ কিশোরীদের স্বাস্থ্য ও কর্মসংস্থানের উন্নতি কোচবিহার , জলপাইগুড়ি , নদিয়া , পুরুলিয়া , কলকাতা , মালদহ এবং আলিপুরদুয়ার এই ৭ টি জেলায় অপুষ্টি দূর করার পাশাপাশি স্বাস্থ্য , পরিবার ও শিশু সুরক্ষা এবং যত্নের ব্যাপারে সচেতনতা তৈরি করে ১১ থেকে ১৮ বছর বয়সি অবিবাহিত কিশোরীদের ক্ষমতায়ন বৃদ্ধি করা হবে ।
মুক্তির আলো ২০১৫, ৪ সেপ্টেম্বর নির্যাতিত ও যৌনপল্লির মেয়েদের সহায়তা প্রদান সরকারি উদ্যোগে ও সম্পূর্ণ আর্থিক অনুদানে স্বেচ্ছাসেবী প্রতিষ্ঠানের মাধ্যমে যৌনকর্মীদের ও দুর্ভাগা নারী ও বালিকাদের পুনরুদ্ধারের পর কাউন্সেলিং এবং বিভিন্ন বিষয়ে প্রশিক্ষণ দিয়ে আর্থিকভাবে স্বনির্ভর করে পুনর্বাসনের ব্যবস্থা করা হচ্ছে ।
স্বাবলম্বন স্পেশাল -- যৌনকর্মীদের ও তাদের মেয়েদের বিকল্প পেশায় নিয়োগ পেশাদার যৌনকর্মীদের এবং তাদের অসুরক্ষিত কন্যাসন্তানদের সমাজে সুস্থ ও সম্মানযোগ্য জীবনযাপনের লক্ষ্যে বিভিন্ন বিকল্প পেশায় নিয়োজিত করার উদ্দেশ্যে এই উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়েছে ।
লোকপ্রসার -- লোকশিল্পীদের জীবনের মানোন্নয়ন করা পশ্চিমবঙ্গের বৈচিত্র্যপূর্ণ ও বর্ণময় লোকসংস্কৃতির বিভিন্ন লোক - আঙ্গিকের বা ধারার সংরক্ষণ , পুনরুজ্জীবন , বিকাশ এবং সমৃদ্ধির পাশাপাশি লোকশিল্পীদের জীবনের মানোন্নয় ঘটানো , তাঁদের যথাযথ মর্যাদাদান এবং আর্থিক সহায়তা করাই এই প্রকল্পের উদ্দেশ্য ।
মাভৈঃ -- সাংবাদিকদের জন্য স্বাস্থ্য বিমা রাজ্য সরকারি কর্মীদের মতো সরকার স্বীকৃত এবং তালিকাভুক্ত , রাজ্যের সমস্ত সাংবাদিক এবং চিত্র সাংবাদিকদের জন্য এই নতুন স্বাস্থ্য বিমা চালু করা হয়েছে ।
স্বামী বিবেকানন্দ স্বনির্ভর কর্ম সংস্থান ২০১২, ১৯ সেপ্টেম্বর সফল উদ্যোগ গড়ে তোলা যাঁরা নিজের উদ্যোগে কোনও ব্যবসা বা কর্মসংস্থানের কাজ করবেন এবং একই অঞ্চলের ৫ বা ততোধিক ব্যক্তি মিলে দল তৈরি করে কোনও আর্থিক উদ্যোগ শুরু করবেন , এই প্রকল্পের মাধ্যমে তাঁদের সরকারি ভর্তুকি দেওয়া হবে । ছোট ছোট উৎপাদন ক্ষেত্র , নির্মাণশিল্প , ব্যবসা , পরিষেবা , কৃষি - ভিত্তিক শিল্প ফুলচাষ , উদ্যানপালন , প্রাণীপালন ইত্যাদি ক্ষেত্রে প্রকল্প ব্যয়ের ৩০ শতাংশ ভর্তুকি বাবদ অর্থ বা ঋণ পাওয়া যাবে ।
পশ্চিমবঙ্গ স্বনির্ভর সহায়ক -- ঋণের বোঝা কমানো স্বনির্ভর দলগুলো বাণিজ্যিক ব্যাংক , আঞ্চলিক গ্রামীণ এবং সমবায় ব্যাংক থেকে ঋণ বার্ষিক ১১ শতাংশ হারে । সরকার এই সুদের ৯ শতাংশ ভর্তুকি হিসেবে দেয় । বাকি ২ শতাংশ স্বনির্ভর দলগুলিকে দিতে হবে ।
সমব্যথী ২০১৬, ১৯ ডিসেম্বর মৃতের পরিবারকে আর্থিক অনুদান এই প্রকল্পের দ্বারা দুস্থ পরিবারের কোনও ব্যক্তির মৃত্যুর পর পারলৌকিক ক্রিয়াকর্ম , মৃতদেহের সৎকার , কবরস্থ বা অন্যান্য প্রচলিত রীতিনীতি পালন করার জন্য মৃতের নিকট আত্মীয়কে এককালীন ২ হাজার টাকা আর্থিক অনুদান দেওয়া হচ্ছে ।
সময়ের সাথী ২০১৩, ডিসেম্বর নির্দিষ্ট সময়ে সরকারি পরিষেবা প্রদান সরকারি কর্মীরা যাতে কাজের গতি বাড়িয়ে মানুষকে নির্দিষ্ট সময়ে পরিষেবা দিতে পারেন , সে ব্যাপারেও তাঁদের নিয়মের বাঁধনে বাঁধা হল ' ওয়েস্ট বেঙ্গল রাইট টু পাবলিক সার্ভিস অ্যাক্ট ', ২০১৩ প্রণয়নের মাধ্যমে ।
সবুজশ্রী ২০১৬, ১৯ ডিসেম্বর চারাগাছ বিতরণ করা প্রতিটি শিশুকে জন্মগ্রহণে পর একটি মূল্যবান চারাগাছ দেওয়া হবে ।
স্বাস্থ্যসাথী ২০১৬, ৩০ ডিসেম্বর উন্নত স্বাস্থ্য পরিষেবা দেওয়া সুচনার সময় আইসিডিএস কর্মী , আশাকর্মী , সিভিক ভলেন্টিয়ার , হোমগার্ড , রেল পুলিশ , স্বনির্ভর গোষ্ঠী , বিপর্যয় মোকাবিলা কর্মী , পঞ্চায়েতের সকল সদস্য , কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয়ের আংশিক শিক্ষক ও শিক্ষাকর্মী এই প্রকল্পের সুবিধা পেয়েছিল । বর্তমানে যে সকল ব্যক্তি সরকারিভাবে চিকিৎসার খরচ পেয়ে থাকেন তা ব্যতীত রাজ্যের সকল নাগরিক এই সুবিধা পাবেন ।
আমার ধান আমার চাতাল ২০১৫, জানুয়ারি কৃষকদের সহায়তা প্রদান কৃষিক্ষেত্রে বিশেষ করে উৎপন্ন ধানের সংরক্ষণ অর্থাৎ নষ্ট হয়ে যাওয়া থেকে রক্ষা করা হবে এই প্রকল্পের মাধ্যমে ।
রূপশ্রী ২০১৮, ১ এপ্রিল দরিদ্র পরিবারের কন্যার বিবাহের সময় অর্থ সাহায্য যে সকল পরিবারের বার্ষিক আয় ১.৫ লক্ষের কম সে সমস্ত পরিবারের মেয়েদের ১৮ বছর বয়সের পর বিবাহ হলে এককালীন ২৫,০০০ টাকা দেওয়া হবে ।
সৌরশ্রী ২০১৮, এপ্রিল সৌরবিদ্যুৎ উৎপাদনের লক্ষ্যে রাজ্যের বিদ্যুতের চাহিদা মেটাতে বিকল্প শক্তি হিসেবে বিদ্যুৎ উৎপাদন করার লক্ষ্যে ।
নিজশ্রী ২০১৮, জুন দরিদ্র ও নিম্নমধ্যবিত্তের নিজের বাড়ির স্বপ্নপূরণ শহরতলিতে দরিদ্র ( মাসিক আয় ১৫ হাজার টাকা পর্যন্ত ) এবং নিম্নমধ্যবিত্তের ( মাসিক আয় ৩০ হাজার টাকা পর্যন্ত ) নিজের বাড়ির স্বপ্নপূরণ করা হবে ।
একুশে অন্নপূর্ণা ২০১৮, ১ মে সরকারি অফিসের কর্মচারী ও কাজে যাওয়া মানুষদের মিলের ব্যবস্থা সরকারি অফিসে প্রচুর মানুষ নিজেদের দরকারে যান , তাদের জন্য ২১ টাকার বিনিময়ে মিলের ব্যবস্থা করা । সরকারি কর্মচারীরাও এই মিলের সুবিধা পাবেন । ২১ টাকার মিলে থাকবে ভাত , ডাল সবজি এবং মাছের কারি ।
কৃষক বন্ধু ২০১৯, জানুয়ারি কৃষকদের সামাজিক সুরক্ষা প্রদান করা এই প্রকল্পের মাধ্যমে কৃষকরা বছরে খারিফ ও রবি শস্য মরসুমে এক প্রতি ১০,০০০ টাকা পাবেন দুটি সমান কিস্তিতে । এছাড়া কৃষকের মৃত্যু ঘটলে ক্ষতিপূরণ বাবদ ২ লক্ষ টাকা পাবেন তাঁর পরিবার । এছাড়া শস্য বিমার জন্যও তারা টাকা পেয়ে থাকবেন এই প্রকল্পের মাধ্যমে ।
যুবশ্রী অর্পন ২০১৯, ৬ মার্চ যুবক - যুবতীদের কাজের সুযোগ বৃদ্ধি এবং তাদের স্বনির্ভর করে তোলা রাজ্যের যুবক - যুবতীদের স্বনির্ভর করার লক্ষ্যে এক নতুন স্বনিযুক্তি প্রকল্প । রাজ্য সরকার প্রতি বছর ৫০,০০০ যুবক - যুবতীদের শিল্পোদ্যোগ ও ব্যবসার জন্য স্বনিযুক্তি প্রকল্পের অধীনে মাথাপিছু ১ লক্ষ টাকা আর্থিক সহায়তা প্রদান করবে ।
বাংলা শস্যবিমা যোজনা ২০১৯ কৃষকদের জন্য ফসল বিমা খারিফ মরসুমে কৃষকরা নিশ্চিন্তে কোনো প্রিমিয়াম ছাড়াই এই শস্যবিমার সুযোগ পাবেন । কৃষকদের হয়ে সরকারই এই বিমার প্রিমিয়াম বহণ করে থাকবে ।
ঐক্যশ্রী ২০২০ পশ্চিমবঙ্গের সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের ছাত্রছাত্রীদের জন্য স্কলারশিপ রাজ্যের বিভিন্ন সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের মেধাবী ও দরিদ্র ছাত্রছাত্রীদের যাদের বাৎসরিক আয় ২.৫ লক্ষের কম এবং যারা উচ্চমাধ্যমিক বা থ্র্যাজুয়েশনে ন্যূনতম ৫০ শতাংশ নম্বর পেয়ে থাকবে তাদের জন্য এই স্কলারশিপ ।
বিনামূল্যে সামাজিক সুরক্ষা যোজনা ২০২০ গৃহহীন ও অসংগঠিত ক্ষেত্রে কর্মরত শ্রমিক এবং কর্মচারীদের সামাজিক সুরক্ষা প্রদান সমস্ত গরিব মানুষ যেমন গৃহহীন ও অসংগঠিত ক্ষেত্রে কর্মরত শ্রমিক এবং কর্মচারীরা ৬০ বছর বয়সের পর এই সুবিধা পাবেন এবং এর জন্য তাদের কোনো প্রিমিয়াম দিতে হবে না । সরকার প্রিমিয়ামের খরচ বহণ করবে ।
স্নেহালয় ২০২০ অর্থনৈতিকভাবে পিছিয়ে পড়া সম্প্রদায়ের জন্য গৃহ নির্মাণ সমস্ত অর্থনৈতিকভাবে পিছিয়ে পড়া সম্প্রদায়ের মানুষ যারা বাংলা আবাস যোজনার সুযোগ থেকে বাইরে থাকবেন তাদের জন্য এই প্রকল্প ।
স্নেহের পরশ ২০২০ পরিযায়ী শ্রমিকদের জন্য অর্থনৈতিক সাহায্য যে সমস্ত পরিযায়ী শ্রমিক পশ্চিমবঙ্গের বাসিন্দা কিন্তু কাজের জন্য পশ্চিমবঙ্গের বাইরে থাকতেন এবং লকডাউনের জন্য কাজ ছেড়ে রাজ্যে ফিরে আসতে বাধ্য হন তাঁদের ১০০০ টাকা করে অর্থনৈতিক সাহায্য দান করা ।
প্রচেষ্টা ২০২০, ১৫ এপ্রিল করোনা ভাইরাসের জন্য কাজ হারানো শ্রমিকদের আর্থিক সুবিধা প্রদান করোনা ভাইরাসের জন্য লকডাউন ঘোষণা হওয়ায় শ্রমিক , দৈনিক রোজগারকারী যাঁরা কাজ হারিয়েছেন তাদের এককালীন ১০০০ টাকা করে আর্থিক সুবিধা দান ।
কর্মভূমি ২০২০ তথ্যপ্রযুক্তি ক্ষেত্রে যুক্ত কর্মীদের কাজের ব্যবস্থা করা করোনা ভাইরাসের জন্য লকডাউন ঘোষণা হওয়ায় যে সমস্ত তথ্যপ্রযুক্তি ক্ষেত্রে যুক্ত কর্মী বাইরের রাজ্যে কাজ করতেন তারা কাজ হারিয়ে ফিরে আসায় তাদের জন্য রাজ্যেই কর্ম সংস্থানের ব্যবস্থা করার জন্য এই প্রকল্প ।
বন্ধু ২০২০ তপশিলিজাতি সম্প্রদায় , ভুক্ত ব্যক্তিদের পেনশন প্রদান যে সমস্ত তপশিলি জাতিভুক্ত ব্যক্তির বয়স ৬০ বা তার অধিক হবে তারা এই প্রকল্পের মাধ্যমে মাসিক ১০০০ টাকা সুবিধা পেয়ে থাকবেন । এর ফলে চার লক্ষ তপশিলি জাতির মানুষ উপকৃত হবেন ।
জয় জোয়ার ২০২০ তপশিলি উপজাতি সম্প্রদায়ভুক্ত ব্যক্তিদের পেনশন প্রদান যে সমস্ত তপশিলি উপজাতি ভূক্তব্যক্তির বয়স ৬০ বা তার অধিক তাদের এই প্রকল্পের মাধ্যমে ১০০০ টাকা করে মাসিক পেনশন প্রদান করা হবে ।
চা সুন্দরী ২০২০, ১৭ সেপ্টেম্বর চা শ্রমিকদের জন্য গৃহের ব্যবস্থা করা উত্তরবঙ্গের চা শ্রমিকদের জন্য স্থায়ী গৃহের ব্যবস্থা করা হল এই প্রকল্পের মূল উদ্দেশ্য । রাজ্য সরকার ৪৬০০ টি পরিবারের জন্য এই প্রকল্পের মাধ্যমে গৃহ বণ্টন করেছে ।
হাসির আলো ২০২০ বিনামূল্যে বিদ্যুৎ প্রদান ৩৫ লক্ষ গরিব মানুষকে বিনামূল্যে ৭৫ ইউনিট পর্যন্ত বিদ্যুৎ প্রদান করা হবে প্রতি ত্রৈমাসিক অনুযায়ী ।
কর্মসাথী ২০২০ বেকার যুবক - যুবতীদের স্বনির্ভর হওয়ার জন্য ঋণের ব্যবস্থা রাজ্য সরকারের তরফ থেকে বেকার যুবক - যুবতীদের এই প্রকল্পের মাধ্যমে দুই লক্ষ টাকা পর্যন্ত ঋণের ব্যবস্থা করা হবে ।
খেলাশ্রী ২০১৭ স্কুল , কলেজে খেলাধুলায় উৎসাহ প্রদান এই প্রকল্পের মাধ্যমে মাধ্যমিক , উচ্চমাধ্যমিক , মাদ্রাসা , কলেজ , বিশ্ববিদ্যালয় এবং কলকাতা ফুটবল লিগে যুক্ত প্রথম থেকে পঞ্চম ডিভিশন পর্যন্ত প্রতিটি ক্লাবকে ক্রীড়ায় উৎসাহ প্রদানের জন্য রাজ্য সরকারের তরফ থেকে অর্থনৈতিক সাহায্য প্রদান করা হবে ।
জলশ্রী ২০১৯ খরার সময় জলের সমস্যা দূরীকরণ খাল , জলাভূমি এবং নদীর সাহায্যে উন্নত জলসেচ ব্যবস্থা গড়ে তোলা , যার ফলে খরার সময় জলের সমস্যা দূর করা সম্ভবপর হবে । ২৮০০ কোটি টাকা এই প্রকল্পে বিশ্ব ব্যাঙ্ক সহায়তা করবে । পূর্ব বর্ধমানে ৫৬০ কোটি টাকার এই প্রকল্পের কাজ শুরু হয়েছে ।
বাংলা আবাস যোজনা ২০১৮ গ্রামীণ এলাকার মানুষদের জন্য বাসস্থানের ব্যবস্থা করা গ্রামে বহু মানুষ রয়েছে যাদের বাসস্থান নেই , তাদের জন্য এই প্রকল্প । প্রতিটি পরিবার এই প্রকল্পে গৃহ নির্মাণের জন্য ১.২ লক্ষ টাকা সরকারি সাহায্য পাবে এবং জঙ্গলমহলের প্রতিটি পরিবার ১.৩ লক্ষ টাকা সরকারি সাহায্য পাবে ।
ইমান ভাঙা ২০১২ এপ্রিল মুসলিম ইমামদের জন্য মাসিক ভাতা এর মাধ্যমে মুসলিম ইমামরা মাসিক ২৫০০ টাকা ভাতা পাবেন ।
পুরোহিত ভাতা ২০২০ ব্রাহ্মণ পুরোহিতদের জন্য মাসিক ভাতা এর মাধ্যমে হিন্দু ব্রাহ্মণ পুরোহিতরা মাসিক ১০০০ টাকা করে ভাতা পাবেন ।
পথশ্রী অভিযান ২০২০, অক্টোবর রাস্তা পুনর্নির্মাণ করা এই অভিযানের মাধ্যমে রাজের ১২,০০০ কিমি রাস্তা সারাই করে পুনর্নির্মাণ করা হবে।
দুয়ারে সরকার কর্মসূচী ২০২০, নভেম্বর সমস্ত সরকারী প্রকল্পের পরিষেবা মানুষের কাছে পৌঁছে দেওয়া এই কর্মসূচীর মাধ্যমে ১৮ টি প্রকল্পের সুবিধা মানুষ পেয়ে থাকবে । বছরে দু'বার এই কর্মসূচী অনুষ্ঠিত হবে ।
কর্মই ধৰ্ম ২০২০, নভেম্বর রাজ্যের যুবকদের কর্মসংস্থানে সহায়তা প্রদান এই প্রকল্পের মাধ্যমে রাজ্যের দু'লক্ষ যুবককে ছোট ব্যবসা চালানোর জন্য একটি করে মোটরবাইক প্রদান করা হবে ।
পাড়ায় পাড়ায় সমাধান ২০২০, ডিসেম্বর স্থানীয় সমস্যা দূর করা এই প্রকল্পের মাধ্যমে রাজ্যের বাসিন্দাদের স্থানীয় সমস্যা সরকার জেনে তা সমাধান করবে । বছরে দু'বার এটি অনুষ্ঠিত হবে ।
তরুনের স্বপ্ন ২০২১, ফেব্রুয়ারি দ্বাদশ শ্রেণীর ছাত্রছাত্রীদের ট্যার , স্মার্ট ফোন প্রদান এই প্রকল্পের মাধ্যমে দ্বাদশ শ্রেণির ছাত্রছাত্রীদের পড়শোনার জন্য স্মার্ট ফোন , ট্যাব কেনার জন্য ১০,০০০ টাকা করে দেওয়া হবে । গত বছর ৯ লক্ষ পড়ুয়া এই প্রকল্পের সুবিধা পেয়েছে ।
মা প্রকল্প ২০২১, ফেব্রুয়ারি অসহায় ও দুঃস্থ মানুষকে খাদ্য গ্রহণের ব্যবস্থা করা এই প্রকল্পের মাধ্যমে অসহায় এবং দুঃস্থ মানুষরা পাঁচ টাকার বিনিময়ে খাদ্য গ্রহণ করতে পারবেন । পাঁচ টাকায় পাওয়া যাবে ভাত , ডাল , সবজি ও একটি ডিম ।
স্টুডেন্ট ক্রেডিট কার্ড স্কিম ২০২১, জুন ছাত্রছাত্রীদের পড়াশোনার জন্য ১০ লক্ষ টাকা ঋণ প্রদান এই প্রকল্পের মাধ্যমে ছাত্রছাত্রীরা পড়াশোনার জন্য ব্যাঙ্ক ঋণ পাবেন । ঋণ তারা ৪ % সুদে পাবেন , বাকি টাকা ও সুদ সরকার বহন করবে । চাকরি পাবার ১ বছরের মধ্যে এই টাকা ফেরত দিতে হবে ।
দুয়ারে রেশন ২০২১, সেপ্টেম্বর নাগরিকদের গৃহে রেশন পৌঁছে দেওয়া এর মাধ্যমে বাসিন্দারা অতি সহজেই তাদের গৃহে রেশন পেয়ে যাবেন ।
লক্ষীর ভাণ্ডার ২০২১, সেপ্টেম্বর মহিলাদের মাসিক ভাতা প্রদান এই প্রকল্পের মাধ্যমে ২১-৫৫ বছর বয়সি মহিলারা ভাতা পাবেন। সাধারণ সম্প্রদায়ের মহিলারা ভাতা পাবেন ৫০০ টাকা এবং তফসিলি জাতি ও উপজাতি সম্প্রদায়ের মহিলারা পাবেন মাসিক ১০০০ টাকা। সরকারি চাকুরিজীবি এবং পেনশন প্রাপকরা এই সুবিধা পাবেন না।

Thanks for your comment. We review and answer your comment.

Post a Comment (0)
Previous Post Next Post