ভারতের বিভিন্ন রামসার অঞ্চলসমূহ (Various Ramsar regions of India)

ভারতের বিভিন্ন রামসার অঞ্চলসমূহ (Various Ramsar regions of India)


আমাদের পরিবেশের ভারসাম্য রক্ষার ক্ষেত্রে জলাভূমির গুরুত্ব অপরিসীম। এই জলাভূমিকে সংরক্ষণের উদেশ্যে ইরানের রামসার নামক স্থানে ১৯৭১ সালে একটি বহুদেশীয় সম্মেলনের আয়োজন করা হয়েছিল এবং ১৯৭১ সালে বৈঠকের পর ইউনেস্কো কর্তৃক জলাভূমি সংরক্ষণের উদেশ্যে গঠিত হয় রামসার অঞ্চল। বর্তমানে সারা বিশ্বে মোট ২৪০০ টির অধিক রামসার অঞ্চল রয়েছে এবং যার মধ্যে ভারতে রয়েছে ৪৯টি অঞ্চল। ভারতের বৃহত্তম রামসার অঞ্চল হলো পশ্চিমবঙ্গের সুন্দরবন।

রামসার অঞ্চল রাজ্য/কেন্দ্র-শাসিত অঞ্চল মর্যাদা লাভ আয়তন (কিমি) গুরুত্বপূর্ণ তথ্য
হায়দারপুর জলাভূমি উত্তরপ্রদেশ ১৩ এপ্রিল, ২০২১ ৬৯.০৮ হস্তিনাপুর ওয়াইল্ডলাইফ অভয়ারণ্যের সীমানায় এই জলাভূমি অবস্থিত । ১৯৮৪ সালে গঙ্গার উপর নির্মিত হয়েছিল মধ্যগঙ্গা ব্যারেজ এবং তার ফলেই সৃষ্টি হয়েছিল এই জলাভূমির । এই অঞ্চলে উন্নতমানের জীববৈচিত্র্য লক্ষ করা যায় ।
সুলতানপুর ন্যাশনাল পার্ক হরিয়ানা ২৫ মে, ২০২১ ১.৪২৫ এই জাতীয় উদ্যানের অভ্যন্তরে একটি অগভীর হ্রদ রয়েছে যা পার্শ্ববর্তী খাল থেকে এবং ক্ষেত থেকে উপচে পড়া জলকে সঞ্চয় করে পরিবেশের ভারসাম্য রক্ষায় সহায়তা প্রদান করে থাকে । ২০১০ সালে কেন্দ্রীয় পরিবেশ , বন ও জলবায়ু পরিবর্তন মন্ত্রকের তরফ থেকে এই জাতীয় উদ্যানের পাঁচ কিলোমিটার অঞ্চলকে ইকো সেনসেটিভ জোন বা সংবেদনশীল অঞ্চলের মর্যাদা প্রদান করা হয়েছে । এই অঞ্চলে ২২০ টির বেশি প্রজাতির সন্ধান মিলেছে ।
বিন্দায়াস ওয়াইল্ড লাইফ স্যাঙ্কচুয়ারি হরিয়ানা ২৫ এপ্রিল, ২০২১ ৪.১২ এই অভয়ারণ্যের অভ্যন্তরে রয়েছে কৃত্রিম স্বাদু জলের জলাভূমি । ১৯৮৬ সালে এই জলাভূমি সংরক্ষিত অঞ্চল হিসাবে ঘোষণা করা হয়েছে । ২০১১ সালে কেন্দ্রীয় পরিবেশ , বন ও জলবায়ু পরিবর্তন মন্ত্রকের তরফ থেকে এই অঞ্চলকে ইকো সেনসিটিভ জোন বা সংবেদনশীল অঞ্চলের মর্যাদা প্রদান করা হয়েছে ।
থোল লেক ওয়াইল্ডলাইফ স্যাঙ্কচুয়ারি গুজরাট ৫ এপ্রিল, ২০২১ ৬.৯৯ ১৯৮৮ সালে এই অঞ্চল ওয়াইল্ডলাইফ অভয়ারণ্যের মর্যাদা লাভ করেছিল । ৩২০ টির বেশি প্রজাতির পাখি এই অভয়ারণ্যে দেখা মেলে ।
ওয়াদবানা জলাভূমি গুজরাট ৫ এপ্রিল, ২০২১ ১০.৩৮ গুজরাটের ভদোদরা জেলার ডাবোই তহসিলে এই জলাভূমি অবস্থিত । এই জলাভূমিতেই লাল ক্রেস্টেড পোচার্ড নামক হাঁস লক্ষ করা যায় ।
অষ্টমুদি জলাভূমি কেবল ১৯ আগস্ট, ২০০২ ৬১৪ কেরলের কোল্লাম জেলায় অবস্থিত প্রাকৃতিক ব্যাকওয়াটার হ্রদ হল এই জলাভূমি । এই জলাভূমিতে বিভিন্ন প্রজাতির মাছের দেখা মেলে ।
বিস কনজর্ভেশন রিজার্ভ পাঞ্জাব ২৬ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ৬৪ এই জলাভূমি বিভিন্ন ধরনের বিপন্ন প্রাণীর সন্ধান পাওয়া গেছে , তার মধ্যে উল্লেখযোগ্য হল সিন্ধুনদের ডলফিন , মহাশিব , শুকরাকৃতির হরিণ প্রভৃতি ।
ভিতরকণিকা ম্যানগ্রোভ ওডিশা ১৯ আগস্ট, ২০০২ ৬৫০ ১৯৭৫ সালে এই অঞ্চল অভয়ারণ্যের মর্যাদা লাভ করে এবং ১৯৯৮ সালে জাতীয় অরণ্যের মর্যাদা লাভ করে । এই অঞ্চলে লবণাক্ত জলের কুমির এবং অলিভ রিডলে কচ্ছপ দেখতে পাওয়া যায় ।
ভোজ জলাভূমি মধ্যপ্রদেশ ১৯ আগস্ট, ২০০২ ৩২ ভোপাল শহরে অবস্থিত এই জলাভূমি দুটি হ্রদ যথা ভোজতাল এবং নিম্ন হ্রদ নিয়ে গঠিত । এই অঞ্চলে বিভিন্ন প্রজাতির সারস লক্ষ করা যায় ।
চন্দ্ৰতাল হিমাচলপ্রদেশ ৮ নভেম্বর, ২০০৫ ০.৪৯ চন্দ্রভাগা নদীর পাশে এই লেক অবস্থিত পশ্চিম হিমালয়ে । এই অঞ্চলে বিপন্ন প্রজাতির তুষার চিতা দেখতে পাওয়া যায় ।
চিল্কা লেক ওড়িশা ১ অক্টোবর, ১৯৮১ ১১৬৫ এটি একটি নোনা জলের লেগুন - যা ওড়িশার পুরী , গঞ্জাম এবং খুরদা জেলায় অবস্থিত । এটি ভারতের বৃহত্তম ও বিশ্বের দ্বিতীয় বৃহত্তম সামুদ্রিক লেগুন । বিপন্ন প্রজাতির ডলফিন এই লেকে লক্ষ করা যায় । এটি ভারতের প্রথম রামসার মর্যাদা প্রাপ্ত স্থানের অন্যতম ।
দীপর বিল আসাম ১৯ আগস্ট, ২০০২ ৪০ এই জলাভূমি গুয়াহাটি শহরের জন্য জল সঞ্চয় করে রাখে । এই অঞ্চলে বিপন্ন চাতক পাখি লক্ষ করা যায় ।
পূর্ব কলকাতা জলাভূমি পশ্চিমবঙ্গ ১৯ আগস্ট, ২০১২ ১২৫ পশ্চিমবঙ্গের প্রথম রামসার তালিকাভুক্ত অঞ্চল । এই জলাভূমি বহুবিধ ব্যবহারের জন্য বিখ্যাত । এই জলাভূমি যুগ যুগ ধরে স্থানীয় নাগরিকদের দ্বারা বিকশিত হয়েছে এবং বর্জ্য জল শোধনাগার নির্মাণ ও রক্ষণাবেক্ষণের ব্যয় থেকে কলকাতা শহরকে রক্ষা করেছে ।
হারিকে জলাভূমি পাঞ্জাব ২৩ মার্চ, ১৯৯০ ৪১ এই জলাভূমি অসংখ্য বিপন্ন প্রাণীর বাস্তুতন্ত্র রক্ষায় সহায়তা করেছে ।
হোকেরা জলাভূমি জম্মু ও কাশ্মীর ৮ নভেম্বর, ২০০৫ ১৩.৭৫ শ্রীনগর শহর থেকে ১০ কিলোমিটার দূরে অবস্থিত এই জলাভূমি । এটি ঝিলাম অববাহিকা সংলগ্ন প্রাকৃতিক জলাভূমি ।
কাঞ্জিল জলাভূমি পাঞ্জাব ২২ জানুয়ারি, ২০০২ ১.৮৩ এই জলাভূমি বিস্তির্ণ অঞ্চলে কৃষিকাজের জন্য জলের জোগান দিয়ে থাকে ।
কেওলাদেও ন্যাশনাল পার্ক রাজস্থান ১ আগস্ট, ১৯৮১ ২৮.৭৩ ভারতের যে দুটি স্থান প্রথম রামসার অঞ্চলের মর্যাদা লাভ করেছিল তাঁর অন্যতম । এটি একটি পক্ষী উদ্যান যেখানে বিভিন্ন ধরনের বিপন্ন প্রজাতির পক্ষী লক্ষ করা যায় ।
কেশোপুর - মিয়ানি কমিউনিটি রিজার্ভ পাঞ্জাব ২৬ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ২৬ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ৩৪ এই অঞ্চলে বিভিন্ন ধরনের বিপন্ন প্রাণী ও উদ্ভিদের সন্ধান মেলে ।
কোলেরু লেক অন্ধ্রপ্রদেশ ১৯ আগস্ট, ২০০২ ৯০১ এটি একটি প্রাকৃতিক ইউট্রোপিকা লেক যা গোদাবরী ও কৃষ্ণা নদীর উপত্যকার মধ্যবর্তী স্থানে অবস্থিত । যাযাবর গ্রে পেলিকান এই অঞ্চলে সন্ধান পাওয়া যায় ।
লোকটাক লেক মণিপুর ২৬ মার্চ, ১৯৯০ ২৬৬ উত্তর - পূর্ব ভারতে অবস্থিত এটি বৃহত্তম স্বাদু জলের হ্রদ । এই লেকের উপরেই রয়েছে বিশ্বের একমাত্র ভাসমান জাতীয় অরণ্য কেইবুল লামজাও । এই অরণ্যে . সাংহাই বা মণিপুরি হরিণ পাওয়া যায় ।
নল সরোবর পক্ষী অভয়ারণ্য গুজরাট ২৪ সেপ্টেম্বর, ২০১২ ১২৩ এই অঞ্চলে বিভিন্ন ধরনের পরিযায়ী পাখি এবং ভারতীয় বন্য গাধা দেখতে পাওয়া যায় ।
নান্দুর মাধোমেশ্বর মহারাষ্ট্র ২১ জুন, ২০১৯ ১৪ দাক্ষিণাত্য মালভূমিতে পশ্চিমঘাট পর্বতমালা অঞ্চলে এই অঞ্চল অবস্থিত । এই অঞ্চলে ভারতীয় চন্দন কাঠের বৃক্ষ এবং ভারতীয় শকুন লক্ষ করা যায় ।
নাঙ্গল ওয়াইল্ডলাইফ স্যাঙ্কচুয়ারি পাঞ্জাব ২৬ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ পাঞ্জাবের শিবালিক পাহাড়ের উপর এই অভয়ারণ্য অবস্থিত । এই অঞ্চলকে ঘিরেই ১৯৬১ সালে নির্মিত হয়েছিল ভাকরা নাঙ্গাল প্রোজেক্ট ।
নবাবগঞ্জ পক্ষী অভয়ারণ্য উত্তরপ্রদেশ ১৯ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ এই অঞ্চলে বিভিন্ন ধরনের পরিযায়ী পাখি দেখা যায় । এছাড়া বিপন্ন প্রাণী গোল্ডেন জ্যাকেল এবং বন বিড়াল দেখা যায় ।
পার্বত্য আগা পক্ষী অভয়ারণ্য উত্তরপ্রদেশ ২ নভেম্বর, ২০১৯ এই অঞ্চলে বিভিন্ন ধরনের বিপন্ন পক্ষী ও পরিযায়ী পাখি দেখতে পাওয়া যায় ।
পয়েন্ট ক্যালিমেয়ার ওয়াইল্ডলাইফ ও পক্ষী অভয়ারণ্য তামিলনাড়ু ১৯ আগস্ট, ২০০২ ৩৮৫ সামুদ্রিক অঞ্চলে বিভিন্ন ম্যানগ্রোভ জাতীয় অরণ্য সামুদ্রিক বিপন্ন প্রাণী দেখতে পাওয়া যায় ।
পংড্যাম লেক হিমাচলপ্রদেশ ১৯ আগস্ট, ২০০২ ১৫৬.৬২ বিপাশা নদীর উপর এই কৃত্রিম বাঁধ নির্মিত হয়েছিল এবং লেক নির্মিত হয়েছিল । এখানে বিভিন্ন ধরনের বিপন্ন জলজ প্রাণী লক্ষ করা যায় ।
রেণুকা লেক হিমাচলপ্রদেশ ৮ নভেম্বর, ২০০৫ ০.২ এটি দেশের ক্ষুদ্রতম রামসার অঞ্চল । বিভিন্ন বিপন্ন প্রজাতির প্রাণী ও উদ্ভিদ এই অঞ্চলে লক্ষ করা যায় ।
রোপার জলাভূমি পাঞ্জাব ২২ জানুয়ারি, 2002 ১৩.৬৫ এটি একটি কৃত্রিম জলাভূমি যা ১৯৫২ সালে নির্মিত হয়েছিল শতদ্রু নদীর গতিপথ পরিবর্তিত করে এবং এই জল পানীয় ও সেচের কাজে ব্যবহৃত হয়েছে । এই অঞ্চলে বিবিধ বিপন্ন প্রজাতির প্রাণী লক্ষ্য করা গেছে ।
রুদ্রসাগর লেক ত্রিপুরা ৮ নভেম্বর, ২০০৫ ২.৪ এই জলাভূমিতে বিপন্ন কচ্ছপসহ অন্যান্য বিপন্ন জলজ প্রাণী লক্ষ করা যায় ।
সমন পক্ষী অভয়ারণ্য উত্তরপ্রদেশ ২ ডিসেম্বর, ২০১৯ এই অঞ্চলে বিবিধ পরিযায়ী পক্ষী ও বিভিন্ন বিপন্ন পক্ষী লক্ষ করা যায় ।
সমসপুর পক্ষী অভয়ারণ্য উত্তরপ্রদেশ ৩ অক্টোবর, ২০১৯ উত্তরপ্রদেশের রায়বেরিলি জেলার গঙ্গা সমতলে এই অভয়ারণ্য অবস্থিত । এই অঞ্চলে বিপন্ন ভারতীয় শকুন , সাধারণ পোচার্ড লক্ষ করা যায় ।
সম্বর লেক রাজস্থান ২৩ মার্চ, ১৯৯০ ২৪০ এটি দেশের বৃহত্তম নোনা জলের হ্রদ । এই অঞ্চলে মধ্য এশিয়া থেকে আগত পরিযায়ী পাখি ফ্লেমিঙ্গো দেখতে পাওয়া যায় ।
স্যান্ডি পক্ষী অভয়ারণ্য উত্তরপ্রদেশ ২৬ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ এটি উত্তরপ্রদেশের হারদোই জেলার স্বাদু জলের জলাভূমি । এই অঞ্চলে প্রায় চল্লিশ হাজার পরিযায়ী পাখি দেখতে পাওয়া যায় ।
সরসই নাওয়ার ঝিল উত্তরপ্রদেশ ১৯ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ উত্তরপ্রদেশের ইটাওয়া জেলায় অবস্থিত এই ঝিলে চারশোর মত বিপন্ন প্রাণী ও উদ্ভিদ লক্ষ করা যায় ।
সস্থমকোট্টা লেক কেরল ১৯ আগস্ট, 2002 ৩.৭০ কোল্লাম জেলায় অবস্থিত এই লেক কেরলের বৃহত্তম স্বাদুজলের লেক ।
সুরিনসার - মানসার লেক জন্ম ও কাশ্মীর ৮ নভেম্বর, ২০০৫ ৩.৫ এই অঞ্চলে বিপন্ন প্রাণী টার্টেল ডাক , ইউরেসিয়ান কোট দেখতে পাওয়া যায় ।
টিসোমোরিরি লাদাখ ১৯ আগস্ট, ২০০২ ১২০ সমুদ্রপৃষ্ঠ থেকে ৪,৫৯৫ মিটার উচ্চতায় অবস্থিত এই জলাভূমি । এই জলাভূমি অঞ্চল বিপন্ন ব্লেক নেকেড সারসের একমাত্র প্রজনন স্থল ।
উচ্চ গঙ্গা নদী উত্তরপ্রদেশ ৮ নভেম্বর, 200৫ ২৬৫.৯ গঙ্গা নদীর উচ্চ প্রবাহ অঞ্চলকে ঘিরে এই জলাভূমি গড়ে উঠেছে । বিপন্ন ডলফিন , ঘড়িয়াল , ছয় প্রজাতির কচ্ছপ এবং ৮২ টি বিভিন্ন জলজ প্রাণীর বাসস্থান হল এই জলাভূমি ।
ভেম্বানাদ - কোল জলাভূমি কেরল ১৯ আগস্ট, ২০০২ ১৫১২.৫ এটি কেরলের বৃহত্তম হ্রদ । কেরলের আলপুষ্মাহ , কোট্টায়াম ও এর্নাকুলাম জেলাকে কেন্দ্র করে এই জলাভূমি অবস্থিত । এই জলাভূমি সেচ ও গৃহপালিত কাজের জন্য ব্যবহার করা হয়ে থাকে ।
উলার লেক জম্মু ও কাশ্মীর ২৩ মার্চ, ১৯৯০ ১৮৯ এটি ভারতের বৃহত্তম স্বাদু জলের হ্রদ । এই হ্রদ বিভিন্ন জলজ প্রাণী ও পশুর খাদ্যের জোগান করে থাকে । এই অঞ্চলে বিভিন্ন প্রজাতির মাছ দেখতে পাওয়া যায় ।
সুন্দরবন- জলাভূমি পশ্চিমবঙ্গ ১ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ ৪২৩০ এটি ভারতের বৃহত্তম রামসার অঞ্চল । এই অঞ্চলে গঙ্গা ও ব্রহ্মপুত্র নদীর সঙ্গম , স্থলে বিশ্বের বৃহত্তম বদ্বীপ বা ডেলটা গড়ে উঠেছে । এই অঞ্চল রয়াল বেঙ্গল টাইগার , ভারতীয় কুমিরের বাসস্থান । ১৯৭৩ সালে এই স্থান টাইগার রিজার্ভ , ১৯৭৭ সালে ওয়াইল্ড লাইফ স্যাঙ্কচুয়ারি , ১৯৮৪ সালে জাতীয় পার্ক , ১৯৮৭ সালে ইউনেস্কো ওয়ার্ল্ড হেরিটেজ সাইটের মর্যাদা লাভ করে । এই অঞ্চলে বিপন্ন ম্যানগ্রোভ অরণ্য লক্ষ করা যায় ।
আসান ব্যারেজ উত্তরাখণ্ড উত্তরাখণ্ড ২১ জুলাই, ২০২০ 8.88 উত্তরাখণ্ডের দেরাদুন জেলায় আসান নদী ও যমুনা নদীর সঙ্গমস্থলে ব্যারেজ নির্মাণের মাধ্যমে এই জলাভূমি গড়ে তোলা হয়েছে । বিপন্ন লাল মস্তিষ্কযুক্ত শকুন , রেড ক্রেস্টেড পোচার্ড , রুডি শেলডার্ক দেখতে পাওয়া যায় ।
কানয়ার লেক বা কবলতাল বিহার ২১ জুলাই, ২০২০ ২৬.২ বিহারের একমাত্র রামসার অঞ্চল যা ইন্দো - গাঙ্গেয় সমভূমিতে অবস্থিত । এই অঞ্চলে বিভিন্ন বিপন্ন প্রাণী , পক্ষী ও উদ্ভিদ লক্ষ করা যায় ।
লোনার লেক মহারাষ্ট্র ১৩ নভেম্বর, ২০২০ ৪.২৭ এই অঞ্চলে বিভিন্ন বিপন্ন প্রজাতির প্রাণী যেমন দুর্বল এশিয়ান উলিনেক , সাধারণ পোচার্ড এবং ধূসর নেকেড়ে দেখতে পাওয়া যায় ।
সুর সরোবর উত্তরপ্রদেশ ১৩ নভেম্বর, ২০২০ ৪.৩১ এই অঞ্চল খিতাম লেক নামেও পরিচিত । এই সরোবর নির্মিত হয়েছিল আগ্রা শহরকে জল সরবরাহের উদ্দেশ্যে । এই অঞ্চলে বিভিন্ন পরিযায়ী ও বিপন্ন প্রাণী যেমন গ্রেটার স্পটেড ঈগল , সারস , ওয়ালাগো ক্যাটফিস দেখতে পাওয়া যায় ।
টিমো কার ওয়েট ল্যান্ড কমপ্লেক্স লাদাখ ১৭ নভেম্বর, ২০২০ ৯৫.৭৭ এই অঞ্চল সমুদ্রপৃষ্ঠ থেকে ৪৫০০ মিটারের বেশি উচ্চতায় অবস্থিত । এই অঞ্চলে বিপন্ন সাকার ফ্যালকন , এশিয়াটিক বন্য কুকুর , দুর্বল তুষার চিতা লক্ষ করা যায় ।
বাকিরা স্যাঙ্কচুয়ারি উত্তরপ্রদেশ ২ ফেব্রুয়ারি, ২০২২ ২৯ পূর্ব উত্তরপ্রদেশের সম্ভ কবিরনগর জেলায় অবস্থিত প্রাকৃতিক জলাভূমি । ১৯৮০ সালে এই অভয়ারণ্য নির্মাণ করা হয়েছিল ।
খিজাদিয়া পক্ষী অভয়ারণ্য গুজরাট ২ ফেব্রুয়ারি, ২০২২ ৬.০৫ জামনগর জেলায় এই পক্ষী অভয়ারণ্য অবস্থিত , যেখানে ৩০০ - র মতো পরিযায়ী প্রাণী দেখতে পাওয়া যায় ।

Thanks for your comment. We review and answer your comment.

Post a Comment (0)
Previous Post Next Post